আজ বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ২ কার্তিক ১৪২৬           আমাদের কথা    যোগাযোগ
Owner

শিরোনাম

  জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল কপোতাক্ষ নিউজের জন্য বাংলাদেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীরা ০১৭১৯২৮০৮২৭ নাম্বারে যোগাযোগ করুন।  

বৃহত্তর বরিশালের ঐতিহাসিক এবং পর্যটন স্থানসমূহ


 বৃহত্তর বরিশালের ঐতিহাসিক এবং পর্যটন স্থানসমূহ

প্রকাশিতঃ রবিবার, জানুয়ারী ২৭, ২০১৯   পঠিতঃ 137025


জি এম মেহেদী হাসান""(বরিশাল, বরগুনা থেকে):

বরিশালের পর্যটন এলাকা, ঐতিহাসিক ও দর্শনীয় স্থান সমূহ-

বাংলার অন্যতম প্রাচীন জনপদ বরিশাল।এটি দেশের একটি প্রশাসনিক বিভাগ। বিভাগীয় শহর বরিশাল।

দক্ষিণাঞ্চলের অর্থনৈতিক প্রাণ কেন্দ্র বরিশাল মহানগরী।

বাংলাদেশ তথা উপমহাদেশের বিশিষ্ট লেখক-কবি, দার্শনিক, সাহিত্যিক এবং হাজারো জ্ঞানী-গুণীর জন্মস্থান এই বরিশাল।

উপমহাদেশের খ্যাতিমান এবং বৃহত্তর বরিশালের সূর্যসন্তান- শেরে বাংলা একে ফজলুল হক, বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর, বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান, কবি জীবনানন্দ দাস, কবি সুফিয়া কামাল, কবি আহসান হাবিব, মহাত্মা অশ্বিনী কুমার দত্ত, কবি কামিনী রায়, বিখ্যাত দার্শনিক আরজ আলী মাতুব্বর, কবি কুসুম কুমারী দাস, অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী, কণ্ঠশিল্পী নচিকেতা, অমৃত লাল দে, বিচারপতি আব্দুল জব্বার উল্লেখযোগ্য।

 

হাজার বছর ধরে বাংলার দক্ষিণ জনপদে ছড়িয়ে রয়েছে প্রাচীন সভ্যতার ঐতিহাসিক নিদর্শন। আর এসকল নিদর্শন বর্তমানে বরিশালের ঐতিহাসিক পর্যটন এলাকা ও দর্শনীয় স্থান হিসেবে দেশে বিদেশে পরিচিতি লাভ করেছে।

ভ্রমন পিপাসু মানুষের জ্ঞানের দ্বার উন্মোচন করছে বরিশালের এসকল ঐতিহাসিক স্থান সমূহ।
______________________________________
১। দুর্গাসাগর,মাধবপাশা
একনজরে দুর্গা সাগর,মাধবপাশাঃ ১৭৮০  খৃষ্টাব্দে চন্দ্রদ্বীপ পরগনার তৎকালীন রাজা শিবনারায়ণ এলাকাবাসীর পানির সংকট নিরসনে মাধবপাশায় একটি বৃহৎ দীঘি খনন করেন। তাঁর মা দুর্গাদেবীর নামে দীঘিটির নামকরণ করা হয় দুর্গাগাসাগর। প্রত্নতত্ত্ব সংরক্ষণ অধিদপ্তরের পরিবর্তে দুর্গাসাগর রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব পালন করছে জেলা প্রশাসন।

দুর্গাসাগরের তিনদিকে ঘাটলা ও দীঘির ঠিক মাঝখানে ৬০ শতাংশ ভূমির উপর টিলা। দুর্গাসাগরে এক সময়ে ঝাঁকে ঝাঁকে অতিথি পাখির সমাগম হতো। জলবায়ু পরির্বতনের প্রভাব ও র্সবশেষ ২০০৭ সালের ১৫ নভেম্বরে সংঘটিত সাইক্লোন ‘সিডরে’র পর দুর্গাসাগরে আর অতিথি পাখির দেখা মিলছে না।

আড়াই শত বছর আগে খনন করা ঐতিহ্যবাহী দুর্গাসাগর ও তার অদূরেই লাকুটিয়া জমিদার বাড়িটিও দর্শনীয় স্থান হিসাবে পরিচিত।

লাকুটিয়া জমিদার বাড়িটি তিনশত বছরের পুরনো।
অবস্থান: বরিশাল, বাবুগঞ্জ (বর্তমান বিমানবন্দর থানা)
দুর্গাসাগর,মাধবপাশায় যেভাবে যাওয়া যায়: নথুল্লাবাদ বাসস্ট্যান্ড থেকে বাস ,অটোরিক্সা , আলফা গাড়ি , মটর সাইকেলে গড়িয়ারপাড় হয়ে দুর্গাসাগর যেতে পারবেন।
 
২। বায়তুল আমান মসজিদ,গুঠিয়া-
অবস্থানঃ দুর্গাসাগরের অদূরেই রয়েছে অত্যাধুনিক বায়তুল আমান জামে মসজিদ কমপ্লেক্স

৩।শেরে বাংলা জাদুঘর, চাখার-
চাখার বয়েজ হাইস্কুল ও ওয়াজেদ মেমোরিয়াল উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের ২৭ শতক জমির উপর গড়ে উঠেছে শেরেবাংলা স্মৃতি জাদুঘর। চাররুম বিশিষ্ট জাদুঘরে রয়েছে দুটি ডিসপ্লে রুম, একটি অফিস রুম ও একটি লাইব্রেরী রুম। ঢুকেই হাতের বাঁদিকে শেরে বাংলা একটি বিশাল প্রতিকৃতি তার জীবনকর্মের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস, সামাজিক রাজনৈতিক, পারিবারিক ছবি, পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত শেরে বাংলার বিভিন্ন কর্মকান্ডের ছবি ।

জাদুঘরে ফজলুল হকের ব্যবহৃত নিদর্শনগুলোর মধ্যে রয়েছে আরাম কেদারা, কাঠের খাট, তোষক, আলনা, ড্রেসিং টেবিল, টুল, চেয়ার-টেবিল, হাতের লাঠি, পানীয় জলের গস্নাস, কিছু মালপত্র। রক্ষিত পুরাকীর্তিগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য কালো পাথরে নির্মিত অষ্টভুজা মারীচী দেবী মূর্তি, কালো পাথরে একটি বড় শিবলিঙ্গ, ব্রোঞ্জের খসপর্ণ বৌদ্ধ মূর্তি, স্বর্ণমুদ্রা, সাধা পাথরের ছোট শিব মূর্তিসহ ছাপাঙ্কিত রৌপ্য মুদ্রা, শ্রীলংঙ্কা, ব্রিটিশ ও সুলতানি আমলরে তাম্র মুদ্রাসহ অন্যান্য প্রত্ন নিদর্শন ।

 ৪। বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীর জাদুঘর, বাবুগঞ্জ-
২০০৮ সালে বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর গ্রন্থাগার ও স্মৃতি জাদুঘর’ নির্মাণ করা হয়। ওই বছরের ২১ মে গ্রন্থাগার ও জাদুঘরের উদ্বোধন করা হয়। ওই সময় আগরপুর ইউনিয়নকে ‘বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীরনগর ইউনিয়ন’ হিসেবে ঘোষণা করা হয়।এখানে প্রতিদিন বহু- দর্শনার্থী ঘুরতে আসেন। 

কিভাবে যাওয়া যায়: বরিশাল নথুল্লাবাস থেকে- বাস, মাইক্রো , প্রাইভেট কার , রিক্সা-ভ্যান টেম্পু হোন্ডা যোগেও আসা যাবে। বরিশাল থেকে মাত্র ২ থেকে ৩ ঘন্টার পথ । উপজেলা সদর থেকে- বাস, মাইক্রো , প্রাইভেট কার , রিক্সা-ভ্যান টেম্পু হোন্ডা যোগেও আসা যাবে। উপজেলা সদর থেকে মাত্র ১ থেকে ২ ঘন্টার পথ। 

৫।বরিশাল জাদুঘর-
১৮২১ সালে নির্মিত নগরের কালেক্টরেট ভবনকে সংস্কার করে বরিশাল বিভাগীয় জাদুঘর প্রতিষ্ঠা করা হয়। জাদুঘরের দ্বিতীয় তলায় নয়টি গ্যালারিতে বরিশাল বিভাগের ভৌগোলিক ও প্রাকৃতিক পরিচিতি, বরিশালের খ্যাতিমান ব্যক্তি, সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য, লোকশিল্প, বাংলাদেশের প্রত্ন সম্পদ ও ইতিহাস-ঐতিহ্য তুলে ধরা হবে। ইতিমধ্যে সংগৃহীত দুই শতাধিক উপাদান গ্যালারিতে সাজানো হয়েছে। এর পাশাপাশি ঔপনিবেশিক স্থাপত্য ঐতিহ্যের স্মারক হিসেবে কালেক্টরেট ভবনটির ইতিহাস, স্থাপত্যশৈলী ও বৈশিষ্ট্যের সংক্ষিপ্ত বিবরণ তুলে ধরা হয়েছে। উদ্বোধনের পর থেকে দর্শনার্থীরা গ্রীষ্মকালে সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা এবং শীতকালে সকাল নয়টা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত জাদুঘর পরিদর্শন করা যায়।

 ৬।সরকারি বি এম কলেজ-
ব্রজমোহন কলেজ বা বি.এম কলেজ বাংলাদেশের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় ও প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এটি বাংলাদেশের দক্ষিণাংশে বরিশাল শহরে অবস্থিত। ১৮৮৯ সালে প্রখ্যাত সমাজসেবক, রাজনীতিবিদ ও শিক্ষানুরাগী অশ্বিনীকুমার দত্ত কলেজটি প্রতিষ্ঠা করেন। তখন কলেজটি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় এর অধিভুক্ত ছিল। সেসময়ে এ কলেজের মান এতই উন্নত ছিল যে অনেকে একে দক্ষিণ বাংলার অক্সফোর্ড বলে আখ্যায়িত করেন। ১৯৬৫ সালে কলেজটির জাতীয়করণ করা হয় ও বর্তমানে কলেজটি বাংলাদেশ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় এর অধিভুক্ত। কলেজটিতে স্নাতক (সম্মান) শ্রেণীতে ২২টি বিষয়ে ও স্নাতকোত্তর শ্রেণীতে ১৯টি বিষয়ে পাঠদান করে থাকে।

৭।বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়-
১৯৬০ সালে প্রথম বাংলাদেশ স্বাধীনতার আগে একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের চাহিদা তৈরি হয়। ১৯৭৩ সালে একটি শহর সমাবেশ অনুষ্ঠিত হওয়ার সময় তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ মুজিবুর রহমান ঘোষনা করেন, বরিশালে একটি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন যা আকাঙ্ক্ষিত ছিল তার। রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ১৯৭৮ সালে বরিশাল সার্কিট হাউস মধ্যে একটি সমাবেশে একটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার আকাঙ্ক্ষা প্রকাশ করেন। তিন দশক পরে বরিশাল মানুষের শক্তিশালী চাহিদা থেকে নভেম্বর ২৯, ২০০৮ ECNEC (Executive Committee of National Economic Council) এই প্রস্তাব পাশ করে, তারপর তত্ত্বাবধায়ক সরকার দ্বারা। ২২ নভেম্বর, ২০১১, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভবনের নির্মাণ শুরু করেন। বরিশাল জিলা স্কুল অস্থায়ী ক্যাম্পাসে ২৫ জানুয়ারী, ২০১২ সালে বেলা পৌনে ১১টায় জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে শিক্ষা মন্ত্রী নুরুল ইসলাম এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাগত কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। মুল ক্যাম্পাস ২০১৩ সালে কীর্তনখোলা নদীর পূর্ব তীরে সদর উপজেলার কর্ণকাঠিতে নির্ধারিত হয়। কীর্তনখোলা নদীর তীরে কর্ণকাঠি এলাকায় রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়টির পূর্ণাঙ্গ ক্যাম্পাস যেখানে সকল বিভাগের শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।

৮।লাকুটিয়া জমিদার বাড়ি-
লাকুটিয়া জমিদার বাড়ি যেভাবে যাওয়া যায়: 
প্রথমে বরিশাল নতুন বাজার বাসস্ট্যান্ড এ আসতে হবে। নতুন বাজার বাসস্ট্যান্ড থেকে বাস, অটোরিক্সা, আলফা গাড়ি, মটর সাইকেল ইত্যাদি যোগে বাবু বাজার বাসস্ট্যান্ড এ নামতে হবে এবং অল্প পথ পায়ে হেটে যেতে হবে। অথবা নথুল্লাবাদ বাসস্ট্যান্ড থেকে বাস ,অটোরিক্সা , আলফা গাড়ি , মটর সাইকেলে   গড়িয়ারপাড়/৬ মাইল বাজার নেমে লাখুটিয়ায় রিকসা যোগে যেতে পারবেন।

অবস্থান:  কাশিপুর ইউনিয়নের লাকুটিয়া গ্রামে অবস্থিত এই জমিদার বাড়ি অত্যন্ত পুরোনো ও ঐতিহ্যবাহী। এখানে তিনটি মন্দির, দুইটি পুরোনো বাড়ি ও একটি বিশাল দিঘী রয়েছে। লাকুটিয়া জমিদার বাড়ী বর্তমানে একটি পিকনিক স্পট ও জনপ্রিয় দর্শণীয় স্থান।

৯। কড়াপুর মিয়া বাড়ি মসজিদ-
কড়াপুর মিয়া বাড়ি মসজিদ মুঘল আমলে নির্মিত বাংলাদেশের একটি প্রাচীন মসজিদ।এটি বরিশাল সদরের কড়াপুরে অবস্থিত। দোতলা এই মসজিদের নিচে ছয়টি দরজা, দোতলায় তিনটি দরজা, তিনটি গম্বুজ, ৮টি বড় ও ১২টি ছোট মিনার রয়েছে। এটি বৃহত্তর বরিশাল অঞ্চলের ব্রিটিশ আমলের সূচনালগ্নে নির্মিত একটি মসজিদ। শহরের পশ্চিমদিকে বরিশাল-কড়াপুর সড়ক সংলগ্ন মিয়াবাড়িতে মসজিদটি অবস্থিত। এই মসজিদের প্রতিষ্ঠাতা হায়াত মাহমুদ ইংরেজ শাসনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করার কারণে প্রিন্স অফ ওয়েলস দ্বীপে নির্বাসিত হন এবং তাঁর বুর্জুগ উমেদপুরের জমিদারিও কেড়ে নেয়া হয়। দীর্ঘ ষোল বছর পর দেশে ফিরে তিনি দু’টি দীঘি এবং দোতলা এই মসজিদটি নির্মাণ করেন। মসজিদটির স্থাপত্যরীতিতে পুরান ঢাকায় অবস্থিত শায়েস্তা খান নির্মিত কারতলব খান মসজিদের অনুকরণ দৃশ্যমান

১০।বরিশাল ক্যাডেট কলেজ, সাতমাইল-
বাংলাদেশের সপ্তম ক্যাডেট কলেজ। ১৯৮১ সালে এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে এর নাম ছিল বরিশাল রেসিডেন্সিয়াল মডেল কলেজ। এটি বরিশাল জেলার বাবুগঞ্জ উপজেলায় ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের পাশে অবস্থিত। এটি দেশের অন্যান্য ক্যাডেট কলেজসমূহের মত এক ধরণের স্বায়ত্বশাসিত আবাসিক সামরিক স্কুল ও প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে পরিচালিত হয়। এখানে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের ( ৭ম শ্রেণী হতে দ্বাদশ শ্রেনী) শিক্ষা দেয়া হয়। জাতীয় পাঠ্যক্রম বাস্তবায়নের পাশাপাশি এখানে ক্যাডেটদের শারীরিক, মানসিক, বুদ্ধিবৃত্তিক, চারিত্রিক, সাংস্কৃতিক ও নেতৃত্বের গুণাবলী বিকাশের লক্ষ্যে শিক্ষা সম্পূরক বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালিত হয়।
 
১১। শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল-
বাংলাদেশের বরিশাল শহরে অবস্থিত চিকিৎসা বিষয়ক উচ্চ শিক্ষা দানকারী একটি প্রতিষ্ঠান। সরাসরি সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত এই প্রতিষ্ঠানটি ১৯৬৯ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়; যা বর্তমানে দেশের একটি অন্যতম প্রধান চিকিৎসাবিজ্ঞান বিষয়ক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এখানে ১ বছর মেয়াদী হাতে-কলমে শিখনসহ (Internship) স্নাতক পর্যায়ের ৫ বছর মেয়াদি এম.বি.বি.এস. শিক্ষাক্রম চালু রয়েছে; যাতে প্রতিবছর ১৯৭ জন শিক্ষার্থীকে ভর্তি করা হয়ে থাকে।

১৯৬৪ সালের ৬ নভেম্বর থেকে এর নির্মাণ কাজ শুরু হয় এবং ১৯৬৮ সালে এতে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়। স্থাপনকালীন এর নাম ছিলো বরিশাল মেডিকেল কলেজ যা পরবর্তীতে বরিশালের মহান নেতা, "শের-ই-বাংলা" নামে খ্যাত আবুল কাশেম ফজলুল হকের নামে নামকরণ করা হয়।

বরিশালের দৃষ্টিনন্দন আরও কিছু প্রতিষ্ঠান-

বি কে এস পি,বরিশাল কেন্দ্র
বরিশাল মডেল স্কুল এন্ড কলেজ
বরিশাল স্টেডিয়াম
শিক্ষা বোর্ড, বরিশাল
বিবির পুকুর
নগর ভবন বরিশাল
পায়রা সমুদ্র বন্দর
টাউন হল

বরিশালে যেভাবে আসবেনঃ
________________________________________
নদী পথে- আপনি  নদী পথে লঞ্চযোগে  বরিশালে পৌছাতে পারবেন। লঞ্চে ভ্রমন করা সর্বাধিক নিরাপদ এবং আরামদায়ক।বর্তমানে ঢাকা-বরিশাল,বরিশাল- ঢাকা রুটে বিলাস বহুল লঞ্চ সার্ভিস চালু রয়েছে। ঢাকার সদরঘাট থেকে প্রতিদিন রাতে বেশকিছু লঞ্চ যেমনঃ সুন্দরবন-১০, পরাবাত-১১, বরিশালের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়।

সড়ক পথে- সারা দেশের সাথে বিভাগীয় শহর বরিশালের সড়ক যোগাযোগ রয়েছে।রাজধানী ঢাকা থেকে সায়েদাবাদ-যাত্রাবাড়ী এবং মিরপুরের গাবতলি থেকে  বাস যোগে  বরিশালে আসতে পারেন।এ রুটে বিলাস বহুল এসি বাস সার্ভিস চালু রয়েছে।

আকাশ পথে- আকাশ পথেও আসতে পারেন বরিশালে।বরিশাল বিমান বন্দরে সরকারি- বেসরকারি কয়েকটি বিমান পরিবহন সার্ভিস চালু রয়েছে।

 

​​

জি এম মেহেদী হাসান / ইসরাফিল হোসেন


মন্তব্য করুন

ঠাকুরগাঁওয়ে প্রতিবেশির অস্ত্রের আঘাতে দুই গৃহবধু আহত

জাককানইবিতে ক্যারিয়ার ক্লাবের নতুন কমিটি ঘোষণা

স্বজন প্রীতি নাকি কর্মীবান্ধব বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগ!

কেশবপুরের পাঁজিয়ায় ফ্রি ব্লাড গ্রুপ ক্যাম্পেইন বৃহস্পতিবার

নাটোরে মৃত্যুর চার মাস পর আ’লীগ নেতার লাশ উত্তোলন

নাটোরের বড়াইগ্রামে অবৈধ ব্যাংকিং কার্য্যক্রম চালাচ্ছে এসটিসি

নাটোরের গুরুদাসপুরে নিজস্ব অর্থায়নে মিড ডে মিল চালু

চুকনগরে কাঁঠালতলা বাজার কমিটি নির্বাচনে আজিজ সভাপতি, রায়হান সম্পাদক

যুবলীগের শীর্ষ দুই পদে আলোচনায় যারা

ঘুমন্ত তুহিনকে ঘরের বাইরে নিয়ে আসে বাবা, খুন করে চাচা

স্বপ্নগুলো এভাবেই ভাঙে, ২ রানে নয়তো ২ মিনিটে: মোসাদ্দেক

এম এম কলেজ ক্যাম্পাসের উন্নয়নের দাবি সাধারণ শিক্ষার্থীদের

কালীগঞ্জে সুপারি গাছ থেকে পড়ে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে সিয়াম!

কারাগার থেকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র এহসান হাবিব সুমন এর খোলা চিঠি

যেকোন সময় ঘোষণা হতে পারে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটি

৫০ বছর ধরে দল করেও সুবিধা বঞ্চিত আ'লীগের প্রচার সম্পাদক নূরুল হক

এসএসসি পরীক্ষাঃ বাংলা দ্বিতীয় পত্রে বেশি নম্বর সহজেই...

যশোরের রাজগঞ্জে ৫৬ যুবকের উদ্যোগে ভাসমান সেতু র্নিমাণ

কেশবপুরের শাহীনের সেই ভ্যানটি উদ্ধার, আটক তিনজন

নোংরা রাজনীতির শিকার যশোরের এমপি স্বপনের ছেলে শুভ

লালমনিরহাটে এক বিধবা মা বাইসাইকেল চালিয়ে ৪২ বছর স্বাস্থ্যসেবা দিচ্ছেন

নারী সহকারীর সঙ্গে ডিসির অশ্লীল ভিডিও ভাইরাল, সংবাদ না করার অনুরোধ

আমি চাই আমাকে দেখে আর দশটা মেয়ে সমাজে প্রতিষ্ঠিত হোক - শ্রাবন্তী অনন্যা

বিএনপি নেতা আবু বকর আবু’র জানাজায় হাজারো মানুষের ঢল

আপনার কাছে জনপ্রিয় খেলা কোনটা ?

  ক্রিকেট

  ফুটবল

  ভলিবল

  কাবাডি

অফিস ঠিকানা  

আর এল পোল্ট্রি, উপজেলা রোড, কেশবপুর বাজার, যশোর।
মোবাইলঃ   ০১৭১৯২৮০৮২৭
ইমেইলঃ   info@kopotakkhonews24.com

প্রকাশক ও সম্পাদক 

মোঃ মাহাবুবুর রহমান (মাহাবুর)

মোবাইলঃ   ০১৭১৯২৮০৮২৭
ইমেইলঃ   info@kopotakkhonews24.com

সোশ্যাল মিডিয়ায় আমরা