আজ বুধবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬           আমাদের কথা    যোগাযোগ
Owner

শিরোনাম

  জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল কপোতাক্ষ নিউজের জন্য বাংলাদেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীরা ০১৭১৯২৮০৮২৭ নাম্বারে যোগাযোগ করুন।  

শাত-ইল রাস এর গল্প, বেকারত্ব এবং প্রেমিকা


 শাত-ইল রাস এর গল্প, বেকারত্ব এবং প্রেমিকা

প্রকাশিতঃ শুক্রবার, আগস্ট ২, ২০১৯   পঠিতঃ 94311


রাফা লেখাপড়া শেষ করা একজন বেকার অবিবাহিত খুবই সুদর্শন  যুবক। নানা ভাবে চাকরির জন্য চেষ্টা করেছে কিন্তু মামা এবং ঘুষের টাকা না থাকায় বেকার জীবন কাটাচ্ছে। এরই মধ্যে বন্ধু জিহাদের বিয়ের দাওয়াত পেলো। জিহাদ রাফার ভার্সিটির বন্ধু। টানা ৩ দিন থাকতে হবে। জিহাদদের অবস্থা খুবই ভালো, সম্ভ্রান্ত পরিবার। তাই সব থেকে ভালো জামাকাপড় নিয়ে গায়ে হলুদের দিন সকালের দিকেই বেরিয়ে পরলো। পৌছাতে বিকেল হয়ে গেলো। ভার্সিটির অনেক বন্ধুই এসেছে জিহাদের বিয়েতে। বিশাল আয়োজনে ধুমধাম করে  বিয়ের অনুষ্ঠান করা হচ্ছে। প্রথম দিন থেকেই জিহাদের খালাতো বোন রিতুর নজর ছিলো রাফার দিকে, বিষয়টা চোখে পরার মতো। এটা যে শুধু রাফাই লক্ষ্য করে তা না, অনেকেই খেয়াল করেছে। রীতিমতো রাফার বন্ধু আর রিতুর বান্ধবীদের মধ্যে কানাকানিও হচ্ছে এ নিয়ে। রিতুর বাবা একটা প্রাইভেট কম্পানিতে উচ্চ পদে চাকরি করে। ঢাকায় নিজেস্ব গাড়ি-বাড়ি সব আছে। রিতুও দেখতে বেশ সুন্দরী। কিন্তু রাফার রিতুর দিকে কোনই আগ্রহ নেই, কারণ রাফার প্রেমিকা আছে। যেকিনা রাফার বেকার সময়েও ছেড়ে যাচ্ছে না উলটা বিভিন্নভাবে রাফাকে সাহায্য করছে। যাইহোক দেখতে দেখতে বিয়ের ৩ দিনের অনুষ্ঠান প্রায় শেষ। সন্ধ্যায় বাড়ি ফিরবে রাফা, বিকেলের দিকে হঠাৎ আলাদা নিরিবিলি একটা জায়গায় রিতুর বাবা ডেকে নিয়ে যায় রাফাকে সাথে রিতুর মাও ছিলো। রাফা মনে মনে লজ্জা এবং সম্মানের ভয়ও পায়। কিন্তু রিতুর বাবা যা বলে তার জন্য রাফ কোন ভাবেই প্রস্তুত ছিলো না।

- তোমার নাম কি..?
- আমার নাম শাহরিয়ার আহম্মেদ রাফা।
- কি করো..?
- এক বছর আগে মাস্টার্স শেষ করেছি কিন্তু এখনো চাকরি পাইনি। তাই আপাতত বেকার।
- আচ্ছা..! তুমি আধুনিক যুগের ছেলে তাই যা বলার সরাসরিই বলি। আমি হচ্ছি রিতুর বাবা আর উনি রিতুর মা। মা-বাবার চোখ সন্তান কখনোই ফাঁকি দিতে পারে না। রিতু আমার একমাত্র মেয়ে ওর কোন ইচ্ছাই আমি অপূর্ণ রাখি নাই। এই তিনদিনে আমাদের যা মনে হলো রিতু মনে হয় তোমাকে পছন্দ করে। তুমি যদি রাজি থাকো তাহলে আমি এর সুন্দর শেষ দেখতে চাই।
- কিন্তু আঙ্কেল আমি তো...
- তুমি কোনই চিন্তা করো না। তোমার চাকরির বিষয়টা আমি দেখবো।
- আঙ্কেল, রিতু কি বলে..?
- রিতুর সাথে আমাদের এখনো এই বিষয়ে কথা হয় নাই।
- তাহলে আমি কি রিতুর সাথে একটু কথা বলতে পারি।
- অবশ্যই, যাও।        
রাফা রিতুলে ডেকে একটু আলাদা নিরিবিলিতে নিয়ে জিজ্ঞাসা করলো।
- দেখুন, আপনার সাথে এই প্রথম কথা বলা আমার। আপনার বাবা-মা আমার সাথে মাত্রই কথা বলেছেন। আপনি কি দেখেছে..?
- হ্যা, আমি দেখেছি।
- কি বিষয়ে কথা বলেছেন সেটা জানেন কি..?
- না, আমি কিছুই জানি না।
- আচ্ছা পরে বলছি।। আপনার কি কারো সাথে প্রেমের সম্পর্ক আছে..? সত্য করে বলবেন লুকাবেন না প্লিজ।
- হ্যা আছে, আমার ভার্সিটির বন্ধু।
- আপনি তো অবশ্যই তাকে বিয়ে করতে চান।
- হ্যা চাই।
- তাহলে আমার কথাটা একটু মন দিয়ে শুনুন। আপনার বাবা চান, আপনার সাথে আমার বিয়ে হোক। আর বিয়ে হলে তিনি আমাকে একটা চাকরিও দিবেন বলেছেন।
- এতে আমি করতে পারি।
- আমার কথাটা ভালো করে শুনুন প্লিজ। দেখুন আমি বেকার, একটা চাকরির খুব প্রয়োজন। আমি রাজি হবো এবং এটাও বলবো, আমি নিজের খরচে বিয়ে করতে চাই। তাই অন্তত ২ মাস চাকরি জীবনের পর বিয়ে করবো। দুই মাস পরে আপনি বলবেন, আমাকে আপনি বিয়ে করতে রাজি না। তখন আর তিনি আমাকে চাকরি থেকে বের করে দিবেন না।। প্লিজ, আমার জন্য এই উপকারটুকো করেন। এতে আপনার এবং আপনার পরিবারের কোনই ক্ষতি হবে না।। বরং আমার অনেক বড় উপকার হবে।
- আচ্ছা, ঠিক আছে তাই হবে।
রাফা তো মহা খুশি। রিতুর বাবা একটা ভালো চাকরি দেয় রাফাকে। রাফা-রিতু মাঝে মাঝে দেখা করে কফি হাউজে বাবাকে বুঝাতে যে তাদের মধ্যে খুব যোগাযোগ হচ্ছে।। ইত্যাদি ইত্যাদি।। সব কিছু ঠিকঠাক চলছে। চাকরির বয়স ২ মাস হয়ে গেছে। শেষের দিকে রিতুর আগ্রহও একটু বেশিই দেখা করার জন্য এ দিকে রিতুর বাবাও এক দিন হঠাৎ বললেন।
- রাফা, অনেকদিন হলো এখন অনুষ্ঠানের আয়োজন করি।
- রিতু কিছু বলেছে আঙ্কেল..?
- নতুন করে আর জিজ্ঞাসার কি আছে।। আমরা তো সব দেখছিই তাই না.??
- তারপরও. 
- আচ্ছা।
ঐদিন বিকেলে রাফা রিতুকে কফি হাউজে ডাকে। রাফা রিতুকে শর্তের কথা মনে করিয়ে দিয়ে সেই কথাটা বলতে বলে। কিন্তু রিতু শোনায় ভিন্ন কথা।
- আমার কোন বিএফ নাই। আমি আপনাকেই পছন্দ করি। আমি আপনাকেই বিয়ে করতে চাই।
- এটা সম্ভব না আমার প্রেমিকা আছে। যে আমার অপেক্ষায় আছে। সামনে মাসে আমরা বিয়ে করবো।
- প্লিজ,, আমি তোমাকেই বিয়ে করতে চাই। আমার কিচ্ছু শুনতে চাই না।।
রাফা বুঝতে পারে তার পাতানো জালে সে নিজেই ধরা পরেছে। তাই রিতুর বাবার অপমান থেকে বাঁচাতে সেই রাতেই ঢাকা থেকে গ্রামে ফিরে আসে সেই বেকার জীবন নিয়ে।।।
এরপর আর যোগাযোগ করে নাই রাফা। রিতু যোগাযোগের চেষ্টা করেছে তবে তা ছিলো শুধুই বিয়ের জন্য।।
এরপর রাফা সিমকার্ড পাল্টেন নতুন করে চাকরি খোঁজা শুরু করে... 

 

ইসরাফিল হোসেন / ইসরাফিল হোসেন


মন্তব্য করুন

ইতিহাসের বড় মানবাধিকার লঙ্ঘন বঙ্গবন্ধুর খুনিদের রক্ষা করা

মহেশপুরের অবৈধ ইটভাটায় পুড়ছে শত শত মণ কাঠ

জাল বিছানো হয়েছে, কখন কে ধরা পড়ে বলা মুশকিল: কাদের

নাটোরে মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে র‍্যালি ও আলোচনা সভা

নাটোরের সিংড়ায় পানিতে ডুবে দুই শিশু মূত্যু

বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ "জোছনা উৎসব" বরগুনায়

নাটোরে বাউয়েট ক্যাম্পাসে দরিদ্র ও শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ

রুহুল আমিন মোহাম্মদ ফারুকী এর কবিতা "উত্তরহীন প্রশ্ন"

কাল থেকে শুরু ‘বঙ্গবন্ধু বিপিএল’ লড়াই

রুম্পার মৃত্যুরহস্য উদঘাটনে এখনও অন্ধকারেই পুলিশ

যাদের নিয়ে আওয়ামী লীগ বিব্রত

সুপ্রিয় ভট্টাচার্য্য যশোরের শ্রেষ্ঠ করদাতা

কালীগঞ্জে সুপারি গাছ থেকে পড়ে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে সিয়াম!

কারাগার থেকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র এহসান হাবিব সুমন এর খোলা চিঠি

যেকোন সময় ঘোষণা হতে পারে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটি

এসএসসি পরীক্ষাঃ বাংলা দ্বিতীয় পত্রে বেশি নম্বর সহজেই...

৫০ বছর ধরে দল করেও সুবিধা বঞ্চিত আ'লীগের প্রচার সম্পাদক নূরুল হক

যশোরের রাজগঞ্জে ৫৬ যুবকের উদ্যোগে ভাসমান সেতু র্নিমাণ

কেশবপুরের শাহীনের সেই ভ্যানটি উদ্ধার, আটক তিনজন

নোংরা রাজনীতির শিকার যশোরের এমপি স্বপনের ছেলে শুভ

লালমনিরহাটে এক বিধবা মা বাইসাইকেল চালিয়ে ৪২ বছর স্বাস্থ্যসেবা দিচ্ছেন

নারী সহকারীর সঙ্গে ডিসির অশ্লীল ভিডিও ভাইরাল, সংবাদ না করার অনুরোধ

আমি চাই আমাকে দেখে আর দশটা মেয়ে সমাজে প্রতিষ্ঠিত হোক - শ্রাবন্তী অনন্যা

বিএনপি নেতা আবু বকর আবু’র জানাজায় হাজারো মানুষের ঢল

আপনার কাছে জনপ্রিয় খেলা কোনটা ?

  ক্রিকেট

  ফুটবল

  ভলিবল

  কাবাডি

অফিস ঠিকানা  

আর এল পোল্ট্রি, উপজেলা রোড, কেশবপুর বাজার, যশোর।
মোবাইলঃ   ০১৭১৯২৮০৮২৭
ইমেইলঃ   info@kopotakkhonews24.com

প্রকাশক ও সম্পাদক 

মোঃ মাহাবুবুর রহমান (মাহাবুর)

মোবাইলঃ   ০১৭১৯২৮০৮২৭
ইমেইলঃ   info@kopotakkhonews24.com

সোশ্যাল মিডিয়ায় আমরা