আজ সোমবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ১১ ফাল্গুন ১৪২৬           আমাদের কথা    যোগাযোগ
Owner

শিরোনাম

  জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল কপোতাক্ষ নিউজের জন্য বাংলাদেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। আগ্রহী প্রার্থীরা ০১৭১৯২৮০৮২৭ নাম্বারে যোগাযোগ করুন।  

দরিদ্র কমরেড থেকে কোটিপতি সম্পাদক


দরিদ্র কমরেড থেকে কোটিপতি সম্পাদক

প্রকাশিতঃ শুক্রবার, জানুয়ারী ১৭, ২০২০   পঠিতঃ 59346


প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও- এ কোন অপরাহ্নে যদি আপনি যান, দেখবেন একজন সম্পাদক হেলথ ক্লাবের দিকে ছুটে চলেছেন। তার হাতে একটি ব্যাগ। সেই ব্যাগের মধ্যে শরীরচর্চা এবং সাঁতারের আধুনিক সব সামগ্রী- এগুলোর দাম কত সে হিসেব নাই বা বললাম। এই সম্পাদক হেলথ ক্লাবে তার শরীর ঠিক করতে মেদ ঝড়াতে যান সোনারগাঁও- এর মধ্যেই ক্যাফে বাজার রেস্টেুরেন্টেও। সেখানে গিয়ে স্যুপ দিয়ে তার ক্ষুধা মেটান। যে দেশের অনেক সংবাদপত্রের সাংবাদিকরা চার থেকে ছয় মাসের বেতন পান না। যে দেশের সাংবাদিকরা বেতন বৃদ্ধির জন্য হারহামেশা আন্দোলন করেন, দেশের একজন সম্পাদকের সোনারগাঁ বিলাস বিস্ময়কর কিন্তু সত্যি। এই সম্পাদক আর কেউ নন, বাংলাদেশের অন্যতম প্রভাবশালী পত্রিকার সম্পাদক মতিউর রহমান।

মতিউর রহমানের সম্পদের হিসেব নিয়ে নানা রকম গল্প গুঞ্জন আছে। এই প্রতিবেদনে সেসব বিষয় আমরা নাই বা আলোচনা করলাম। বরং তার জীবন যাপন নিয়েই আমরা আলোচনা করি।

মতিউর রহমান বছরে একাধিকবার বিদেশে যান। তার এক ধরণের চর্মরোগ আছে যার জন্য রক্ত পরিবর্তন করতে হয়। এই ব্যায়বহুল চিকিৎসার জন্যই তার বিদেশ যেতে হয়। ঢাকার শহরে তার একাধিক বাড়ি রয়েছে। অন্যান্য বিত্তের খবর নাই বা আলোচনা করলাম।

প্রশ্ন হলো একজন সম্পাদকের এত বিত্তের উৎস কোথায়? মতিউর রহমান কি আগে থেকেই ধনী ছিলেন? মতিউর রহমানের ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায়; তিনি একজন কমিউনিস্ট পার্টির কর্মী থেকে আস্তে আস্তে ওই পার্টির সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য হয়েছিলেন। তার হাতে তুলে দেওয়া হয়েছিল কমিউনিস্ট পার্টির মুখপাত্র- ‘একতা’। গর্বাচেভের গ্লাসনস্ত পেরেস্ত্রইকা যেটা বিশ্বে কমিউনিস্ট আন্দোলনকে বিভক্ত করেছিল। সেই গ্লাসনস্ত পেরেস্ত্রইকা বাংলাদেশে সমর্থনকারীর অন্যতম ছিলেন মতিউর রহমান। মতিউর রহমান একতার সম্পাদক থাকা অবস্থায় ধণিক গোষ্ঠীর লুটপাটের কাহিনী বলে আলোচিত হন। সে সময় তিনি আবুল খায়ের লিটুসহ অনেক ধর্ণাঢ্য ব্যক্তির বিরুদ্ধে কুৎসা রটিয়েছিলেন। কিন্তু তাদের অন্দরমহলে গিয়ে চা পান এবং তাদের কাছ থেকে প্যাকেট নেওয়ার অভিযোগও তার বিরুদ্ধে রয়েছে। এখন হিসেব মেলালে দেখা যায়, সেই সময় ধণিক গোষ্ঠীর লুটপাটের কাহিনীতে যাদের চরিত্র হণণ করেছিলেন মতিউর রহমান আজকে তাদের সঙ্গেই তার সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক। তাদের সঙ্গে মতিউর রহমানকে বিভিন্ন ৫ তারকা রেস্তোরায় চিয়ার্স বলে রেড ওয়াইনের গ্লাস ঠুকতে দেখা যায়।

সোভিয়েত ইউনিয়নের গ্লাসনস্ত পেরেস্ত্রইকা নিয়ে যখন বিশ্ব বিভক্ত, তখন মতিউর রহমান একটি প্রবন্ধ লেখেন ‘খোলা মন, খোলা হাওয়া’। তিনি প্রকাশ্যেই সংস্কারকে সমর্থন করেন। এই সময় কমিউনিস্ট পার্টির সঙ্গে তার সম্পর্ক আলগা হয়ে যায়। অনেকেই দাবি করেন, একতার নামে বিপুল পরিমাণ অর্থ তিনি কমিউনিস্ট পার্টিকে না দিয়ে নিজের পকেটস্থ করেছেন। অবশ্য এই অভিযোগের সত্যাসত্য যাচাই করা সম্ভব হয়নি। তবে কমিউনিস্ট পার্টির একদা সম্পাদক এখন পুঁজিবাদী ক্লাবের অন্যতম ধারক বাহক।

একতা’র সঙ্গে সম্পর্ক আলগা হলে মতিউর রহমান যোগ দেন আজকের কাগজে। আজকের কাগজের তৎকালীণ সম্পাদক নাইমুল ইসলাম খানের কাছে অনুনয় বিনয় করে তিনি বিশেষ প্রতিবেদকের একটি চাকরি নেন। সে সময় দারিদ্রপুষ্ট একজন সাংবাদিকের প্রতিকৃতি ছিলেন মতিউর রহমান। আজকের কাগজেও তিনি বিভাজনের নীতি গ্রহণ করেন। আজকের কাগজের নাইমুল ইসলাম খানসহ অন্যান্যদের তিনি উদ্বুদ্ধ করেন নিজের মালিকানায় নিজের পত্রিকা করার। আর সে সময় তিনি আজকের কাগজের প্রকাশক কাজী শাহেদ আহমেদের বিরুদ্ধে তরুণ সাংবাদিকদের উসকে দেন। তরুণদের গড়া একটি বিস্ময়কার সফল সংবাদপত্র আজকের কাগজকে রাজনৈতিক কৌশলে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যান। তৈরী হয় ভোরের কাগজ। এ সময় আজকের কাগজ থেকে ১৪০ জন কর্মী একযোগে বেরিয়ে যায় এবং প্রকাশ করে ভোরের কাগজ। ভোরের কাগজে মতিউর রহমান হয়ে যান অন্যতম মালিক। নাইমুল ইসলাম খানের সম্পাদনায় প্রকাশিত হলেও সেখানেও তিনি আবার তার কুটকৌশলের ব্যবহার শুরু করেন। আর কুটকৌশল করে ভোরের কাগজের মধ্যে বিভক্তি তৈরি করেন। ভোরের কাগজের টাকা কোথা থেকে আসলো এই প্রশ্ন যখন সাংবাদিকরা করে তখন মতিউর রহমান নিরব ছিলেন। পরবর্তীতে জানা যায় সাবের হোসের চৌধুরীর কাছ থেকে টাকা নিয়ে তাকে আড়াল করে মতিউর রহমান ভোরের কাগজ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। একসময় নাইমুল ইসলাম খানের বিরুদ্ধে তরুণ সংবাদকর্মীদের ক্ষেপিয়ে তোলেন, ফলে নাইমুল ইসলাম খানকে ভোরের কাগজ থেকে বিদায় নিতে হয়। মতিউর রহমান হয়ে যান ভোরের কাগজের সর্বেসর্বা।

এই সময় সাবের হোসেন চৌধুরীরা মালিক হিসেবে প্রকাশ্যে আসেন। কিন্তু মতিউর রহমানের অভ্যাসই হল স্থির না থাকা এবং সবসময় গ্রুপিং আর বিভক্তি সৃষ্টি করা। এটাই বোধ হয় কমিউনিস্ট রাজনীতির মুদ্রাগত বৈশিষ্ট্য, যে কারণে সারা বিশ্বে কমিউনিস্ট আন্দোলনের বিপর্যয় এসেছে। ভোরের কাগজে থাকা অবস্থায় তিনি নতুন মালিক এবং বিনিয়োগের সন্ধান করেন। এই সন্ধান করতে গিয়ে তিনি পান 

ট্রান্সকম গ্রুপকে এবং ভোরের কাগজে থাকা অবস্থায় ভোরের কাগজের সকল সুযোগ-সুবিধা ব্যবহার করে তিনি প্রথম আলোর পরিকল্পনা বিন্যাস করেন এবং একটা সময় তিনি ভোরের কাগজকে প্রায় পথে বসিয়ে সমস্ত মেধাবী কর্মীদের নিয়ে প্রথম আলোতে যান। এভাবেই গঠিত হয়েছিল প্রথম আলো।

প্রথম আলোর তিনি অন্যতম মালিকও বটে। প্রথম আলোর মালিকানায় তাঁর অংশীদারিত্ব আছে বলে শোনা যায় আর প্রথম আলোতে যোগ দেয়ার পরেই মতিউর রহমান ফুলেফেঁপে ওঠেন এবং তাঁর এই পুঁজিবাদী বিলাসী জীবনের শুরু হয়। যদিও তিনি সবসময় সততার কথা বলেন, দুর্নীতির বিরুদ্ধে কথা বলেন, পরিবারতন্ত্রের বিরুদ্ধে কথা বলেন। কিন্তু তিনি তাঁর পুত্রের বিজ্ঞাপন ফার্মের জন্য প্রথম আলোর মতো পত্রিকা ব্যবহার করেছেন। আর তাঁর দুর্নীতির ফিরিস্তির বিবরণ এখন নাই বা করা হলো, সেটা অন্যকোন এক প্রতিবেদনে অন্যকোন সময়ে করা যাবে।

এরকম একজন সম্পাদক যিনি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ধ্বংস করে একটি প্রতিষ্ঠান গড়েছেন সেই সম্পাদক জাতির জন্য কতটুকু কল্যাণকর সে প্রশ্ন উঠেছে। আজ মতিউর রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে আবরার হত্যাকাণ্ডের জন্য। আমরা জানি যে, মতিউর রহমানের হাত অনেক লম্বা। আজ বাংলাদেশকে প্রমাণ করতে হবে যে দেশে আইনের শাসন কতটুকু প্রতিষ্ঠিত। মতিউর রহমানের মতো ক্ষমতাবানরা বারবার আইনের ফাঁকফোকর দিয়ে পার পেয়ে যাবে কিনা সেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে জাতিকে এবং সবকিছুর উর্ধ্বে বাংলাদেশে যেন সততা, নিষ্ঠা এবং বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা প্রতিষ্ঠিত হয়- সে ব্যাপারে সবাইকে সোচ্চার হতে হবে। আর আমরা তো জানি, প্রথম আলো হচ্ছে বাংলাদেশের বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতার প্রধান অন্তরায়। বাংলা ইনসাইডার

ইসরাফিল হোসেন / ইসরাফিল হোসেন


মন্তব্য করুন

মুরাদনগরে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে দেশীয় অস্ত্রসহ আটক এক

ইঞ্জিনিয়ার মনির খাঁন তৃতীয় বারের মত সভাপতি নির্বাচিত

বাংলাদেশকে লন্ডনের মতো উন্নত করতে চান পরিকল্পনামন্ত্রী

আওয়ামী লীগ ছাড়া সবার মনোনয়নপত্র বাতিল

‘বউমাকে পিটিয়ে মেরে ফেলেছে আমার ছেলে’

প্রেম করে বিয়ে করেছিলেন পাপিয়া

ভেড়ামারায় অবৈধ ফেন্সিডিল ও মোটর সাইকেল উদ্ধার

মনিরামপুরের মশ্মিমনগর ইউপির চেয়ারম্যান আড়াই বছর ধরে করছেন সচিবের কাজ

ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের পরীক্ষা নিলেন সাংসদ ইসরাফিল

অচল হাত-পায়ে পিএইচডি, এখন লাখো মানুষের আদর্শ

উল্টা-পাল্টা নিউজ করলে সাংবাদিকদের খবর আছে, এসএম হল ভিপি

বাংলাদেশের কোনো ব্যাংকে বন্ধ হয়ে গেলে গ্রাহক ক্ষতিপূরণ পাবে এক লাখ টাকা

কালীগঞ্জে সুপারি গাছ থেকে পড়ে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে সিয়াম!

কারাগার থেকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র এহসান হাবিব সুমন এর খোলা চিঠি

যেকোন সময় ঘোষণা হতে পারে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটি

এসএসসি পরীক্ষাঃ বাংলা দ্বিতীয় পত্রে বেশি নম্বর সহজেই...

৫০ বছর ধরে দল করেও সুবিধা বঞ্চিত আ'লীগের প্রচার সম্পাদক নূরুল হক

যশোরের রাজগঞ্জে ৫৬ যুবকের উদ্যোগে ভাসমান সেতু র্নিমাণ

কেশবপুরের শাহীনের সেই ভ্যানটি উদ্ধার, আটক তিনজন

লালমনিরহাটে এক বিধবা মা বাইসাইকেল চালিয়ে ৪২ বছর স্বাস্থ্যসেবা দিচ্ছেন

নোংরা রাজনীতির শিকার যশোরের এমপি স্বপনের ছেলে শুভ

নারী সহকারীর সঙ্গে ডিসির অশ্লীল ভিডিও ভাইরাল, সংবাদ না করার অনুরোধ

আমি চাই আমাকে দেখে আর দশটা মেয়ে সমাজে প্রতিষ্ঠিত হোক - শ্রাবন্তী অনন্যা

বিএনপি নেতা আবু বকর আবু’র জানাজায় হাজারো মানুষের ঢল

আপনার কাছে জনপ্রিয় খেলা কোনটা ?

  ক্রিকেট

  ফুটবল

  ভলিবল

  কাবাডি

অফিস ঠিকানা  

আর এল পোল্ট্রি, উপজেলা রোড, কেশবপুর বাজার, যশোর।
মোবাইলঃ   ০১৭১৯২৮০৮২৭
ইমেইলঃ   info@kopotakkhonews24.com

প্রকাশক ও সম্পাদক 

মোঃ মাহাবুবুর রহমান (মাহাবুর)

মোবাইলঃ   ০১৭১৯২৮০৮২৭
ইমেইলঃ   info@kopotakkhonews24.com

সোশ্যাল মিডিয়ায় আমরা