আজ রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮           আমাদের কথা    যোগাযোগ

শিরোনাম

  প্রতিনিধি হইতে ইচ্ছুকরা ০১৭৪৭৬০৪৮১৫ নাম্বারে যোগাযোগ করুন।  

মনিরামপুরে জাতীয় ফুল শাপলা বিলুপ্ত প্রায়


মনিরামপুরে জাতীয় ফুল শাপলা বিলুপ্ত প্রায়

প্রকাশিতঃ বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২০   পঠিতঃ 334341



 ইকরামুল হোসেন, মনিরামপুর (যশোর) থেকেঃ  বাংলাদেশের জাতীয় ফুল সাদা শাপলা। যশোর জেলার মনিরামপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় কিছু সাদা শাপলা দেখা গেলেও লাল শাপলা প্রায়ই দেখা যায়না বললেও ভুল হবে না। তবে অযত্নে, অবহেলা কৃষি জমিতে অধিক পরিমাণে কীটনাশক সার ব্যবহার করার কারণে দেশের জাতীয় ফুল শাপলা এখান থেকে হারিয়ে যাওয়ার প্রায় উপক্রম হয়েছে।

জানা যায়, বর্ষার মৌসুমে বিভিন্ন এলাকার খাল-বিলে, জলাশয় ও নিচু জমিতে পানি থাকে। আর ঠিক এ সময় প্রাকৃতিকভাবে সেখানে জন্ম নেয় শাপলা। কয়েকবছর পূর্বে থাকার বিভিন্ন এলাকায় প্রচুর পরিমাণে শাপলা ফুল জন্ম নিত। তখন চারিদিকে এক প্রাকৃতিক নয়নাভিরাম দৃশ্যে পরিণত হতো। বর্তমানে বিভিন্ন প্রজাতির শাপলার মধ্যে সাদা শাপলা দুই একটি দেখা গেলেও লাল শাপলা দেখাই যায় না। অভিযোগ উঠেছে, খাল-বিল, জলাশয় ভরাট করে কৃষি জমি তৈরী, জলবায়ুর পরিবর্তন, এলাকা কৃষি প্রধান হওয়ায় অসাদু কৃষি অফিসাররা অনভিজ্ঞ কৃষকদের তেমন কোন ভাল কৃষি পরামর্শ এবং ট্রেনিং না করানো, তাদের ফসলের জমিতে মাত্রারিক্ত কীটনাশক ব্যবহারের কারণে থানার বিভিন্ন এলাকা থেকে বাংলাদেশের জাতীয় ফুল শাপলা হারিয়ে যাচ্ছে।

বিভিন্ন এলাকায় খাল-বিলে অথবা নিচু জমির পানিতে যেদিকে তাকানো যেত চোখ পড়লে বিভিন্ন বাহারি রংঙের শাপলা ফুল দেখা যেতো। এর বাহারি রূপ দেখে সকলের নয়ন জুড়িয়ে যেত। সাদা শাপলা বাংলাদেশের জাতীয় ফুল। অনেকের মতে লাল ও সাদা রংঙের শাপলা হয়ে থাকে। শাপলা ধনী কি গরীব সবাই সবজি হিসেবে ব্যবহার করতো এবং লাল শাপলার আছে অনেক ভেষজ গুন। আবার শাপলার ফল(ঢ্যাপ) দিয়ে গ্রাম এলাকার লোকেরা এক ধরণের সু-স্বাদু খই তৈরী করতো। বর্ষা মৌসুমে গ্রাম এলাকার অনেকে বিভিন্ন জায়গা থেকে শাপলা তুলে বাজারে বিক্রি করতো। মাটির নিচে শাপলার মূল অংশ(মোতা) পানি কমে যাওয়ার পরে তুলে সু-স্বাদু খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করতো। তবে আমাশয়ের জন্য মোতা অনেক উপকারী বলে জানা যায়।

এ সম্পর্কে হাসানুর রহমান (৫০) বলেন, জাতীয় ফুল শাপলাকে অবশ্যই বাঁচিয়ে রাখতে হবে। কারণ একদিকে শাপলা আমাদের জাতীয় ফুল। অন্য দিকে শাপলাকে সবজি হিসেবে সবাই খাদ্য তালিকায় ব্যবহার করে এবং ইহার মূলটিও খাদ্য হিসেবে অনেক সু-স্বাদু। সকল প্রকার ফল, ফুল ও কৃষি চাষাবাদ সম্পর্কে কৃষি অফিস গুলো পরামর্শ দিয়ে থাকে। কিন্তু শাপলাফুল সম্পর্কে কোন পরামর্শ দেওয়া হয় না। সে কারণে এলাকায় ইহা কিভাবে সংরক্ষণ করে বাঁচিয়ে রাখা যায় তা কেহ জানে না। এজন্য কৃষি অফিসের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের এগিয়ে আসতে হবে। আমাদের সকলের মনে রাখা উচিত সবজির পুষ্টিগুণ সহ শাপলা আমাদের জাতীয় ফুল।

এনামুল হক /


মন্তব্য করুন

যশোরের শার্শায় দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ১২

৫ জানুয়ারি খুলনা বিভাগের ৭১ ইউপিতে ভোট

প্রথমবারের মতো ওয়ানডে বিশ্বকাপে বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দল

রাত পোহালেই মনিরামপুরে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন

পিচ কমিটির সদস্য আখ্যা দিয়ে অপপ্রচার করায় আওয়ামী লীগ নেতার সংবাদ সম্মেলন

কেশবপুরে ধীরাজ ভট্টাচার্যের স্মরণানুষ্ঠান

কেশবপুরে ভোটের তারিখ ঘোষণায় বইছে নির্বাচনী আমেজ

নিরাপদ সড়কসহ ৯ দফা দাবিতে আজ ফের রাস্তায় শিক্ষার্থীরা

সহিংসতার আশংকার মাঝে আগামীকাল তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচন

মাথা নত করার জন্য খালেদা জিয়ার জন্ম হয়নি: গয়েশ্বর

পঞ্চম ধাপে যশোরের যে ২৪ ইউপিতে ভোট ৫ জানুয়ারি

প্রতি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থী ৫ জনেরও বেশি

কালীগঞ্জে সুপারি গাছ থেকে পড়ে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে সিয়াম!

কারাগার থেকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র এহসান হাবিব সুমন এর খোলা চিঠি

এসএসসি পরীক্ষাঃ বাংলা দ্বিতীয় পত্রে বেশি নম্বর সহজেই...

যেকোন সময় ঘোষণা হতে পারে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটি

যশোরে এবার সরকারি চালসহ ঘাতক দালাল নিমূল কমিটির নেতা আটক

লালমনিরহাটে এক বিধবা মা বাইসাইকেল চালিয়ে ৪২ বছর স্বাস্থ্যসেবা দিচ্ছেন

৫০ বছর ধরে দল করেও সুবিধা বঞ্চিত আ'লীগের প্রচার সম্পাদক নূরুল হক

নোংরা রাজনীতির শিকার যশোরের এমপি স্বপনের ছেলে শুভ

যশোরের রাজগঞ্জে ৫৬ যুবকের উদ্যোগে ভাসমান সেতু র্নিমাণ

কেশবপুরের শাহীনের সেই ভ্যানটি উদ্ধার, আটক তিনজন

নারী সহকারীর সঙ্গে ডিসির অশ্লীল ভিডিও ভাইরাল, সংবাদ না করার অনুরোধ

ব্যাচমেট হিসেবে সাইয়েমার পক্ষে ক্ষমা চাইলেন কেশবপুরের এসিল্যান্ড

আমাদের নিউজ পোর্টাল আপনার কেমন লাগে ?

  খুব ভালো

  ভালো

  খুব ভালো না

  ভালো লাগে না

অফিস ঠিকানা  

আর এল পোল্ট্রি, উপজেলা রোড, কেশবপুর বাজার, যশোর।
মোবাইলঃ   ০১৭১৯২৮০৮২৭
ইমেইলঃ   info@kopotakkhonews24.com

প্রকাশক ও সম্পাদক 

মোঃ মাহাবুবুর রহমান (মাহাবুর)

মোবাইলঃ   ০১৭১৯২৮০৮২৭
ইমেইলঃ   info@kopotakkhonews24.com

সোশ্যাল মিডিয়ায় আমরা