আজ শনিবার, ২ জুলাই ২০২২, ১৮ আষাঢ় ১৪২৯           আমাদের কথা    যোগাযোগ

শিরোনাম

  প্রতিনিধি হইতে ইচ্ছুকরা ০১৭৪৭৬০৪৮১৫ নাম্বারে যোগাযোগ করুন।  

দীর্ঘক্ষণ প্রস্রাব চেপে রাখলে হতে পারে যে মারাত্মক বিপদ


দীর্ঘক্ষণ প্রস্রাব চেপে রাখলে হতে পারে যে মারাত্মক বিপদ

প্রকাশিতঃ বুধবার, জানুয়ারী ১৯, ২০২২   পঠিতঃ 151767


প্রস্রাব শরীরের সুস্থতার ইঙ্গিত দেয়। প্রস্রাবের মাধ্যমে শরীর থেকে নানা ধরনের ক্ষতিকর পদার্থ বেরিয়ে যায়। তবে অনেকেরই অভ্যাস রয়েছে প্রস্রাব চেপে রাখার। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই অভ্যাস ঢেকে আনতে পারে মারাত্মক সমস্যার।

১০-১৫ মিনিট প্রস্রাব চেপে রাখলে তেমন সমস্যা নেই। তবে ঘণ্টার পর ঘণ্টা প্রস্রাব চেপে রাখলে দেখা দিতে পারে ঘোর সমস্যা। সেক্ষেত্রে আপনার এই অভ্যাস আজই বদলান।

​বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রত্যেকেরই উচিত প্রস্রাব পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই টয়লেট করে ফেলার। পানি পান করার পর শরীরের প্রয়োজনের ব্যতিত বাকিটা কিডনিতে জমা হয়। এরপর শরীরের অন্যান্য খারাপ উপাদানের সঙ্গে পানি ব্লাডারে জমে।

ব্লাডার যখন পূর্ণ হয় পানিতে তখনই ব্রেইনে সংকেত যায় প্রস্রাব পেয়েছে। সেই সংকেত পাওয়ার পরই মূত্রত্যাগ করা জরুরি। জেনে নিন প্রস্রাব চেপে রাখলে সেব ক্ষতি হতে পারে-

​কিডনি থেকে বের হওয়ার পর মূত্র যায় ব্লাডারে। সেখানেই জমে মূত্র। আমাদের ব্লাডার একবারে ৪০০-৫০০ মিলিমিটার মূত্র ধরে রাখতে পারে। যার পরিমাণ মোটামুটি দুই কাপ। এর বেশি হলেই ব্লাডারের উপর চাপ পড়ে।

> তাই এ পরিমাণ মূত্র ব্লাডারে পৌঁছালেই তা খালি করে দেওয়া উচিত। যদিও এক-দুইদিন এমন সমস্যা হলে তেমন কোনো সমস্যা হয় না। তবে দিনের পর দিন এমনটি হলে ব্লাডারের উপর মারাত্মক চাপ পড়ে। এরপর ব্লাডারের অসুখ হতে দেখা যায়।

​ধরুন আপনি রোজই প্রস্রাব চেপে রাখছেন। এর মাধ্যমে ব্লাডারের অসুখ হওয়া খুব স্বাভাবিক। তবে এক্ষেত্রে একটা সময়ের পর ব্লাডার নিজের ক্ষমতাও হারাতে থাকে। তখন প্রস্রাব ধরে রাখলে তলপেটে প্রচণ্ড ব্যথা হতে পারে। তাই এ অভ্যাস থেকে আজই মুক্তি পাওয়া উচিত।

​>> ইউরিনারি ট্র্যাক্ট ইনফেকশন বা ইউটিআিই খুবই জটিল ধরনের এক সংক্রমণ। এক্ষেত্রে দীর্ঘক্ষণ টয়লেট চেপে রাখার কারণে মানুষ এই সমস্যায় আক্রান্ত হতে পারেন।

প্রস্রাব চেপে রাখলে জীবাণুরা শরীরে বেশিক্ষণ থাকার সুবিধা পায়। তখন দেখা দেয় নানা সমস্যা। এক্ষেত্রে প্রস্রাব করার সময় জ্বালা, ইউরিনের রং বদলে যাওয়া, তলপেটে ব্যথা, ইউরিনে গন্ধ ইত্যাদি সমস্যা দেখা যায়।

​দিনে কতবার প্রস্রাব করবেন?

যদিও এ বিষয়টি একেকজনের শরীরের উপর নির্ভর করে। ফলে প্রস্রাবও সবার শরীরে সমান তৈরি হয় না। তবে দিনে ৪-১০ বার প্রস্রাব হলো স্বাভাবিক।

এক্ষেত্রে ৬-৮ বার হলো প্রস্রাবের গড়। সুস্থ থাকতে প্রস্রাব পেলেই দ্রুত টয়লেটে যেতে হবে। না হলেই বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যাবে।

সূত্র: হেলথলাইন

ইসরাফিল হোসেন / ইসরাফিল হোসেন


মন্তব্য করুন

কেশবপুরে প্রথম রাগবি খেলার প্রশিক্ষণ

কেশবপুরে পত্রিকার হকারকে মারপিট

কেশবপুরে মোবাইল ব্যবহার করতে নিষেধ করায় স্কুল ছাত্রীর আত্মহত্যা

কেশবপুরে দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে নরসুন্দর খুন

কুড়িগ্রামের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, ফের আতঙ্কে মানুষ

ভয়াবহ বিদ্যুৎ সংকট, পাকিস্তানে বন্ধ হতে পারে মোবাইল সেবা

দুর্বৃত্তদের অস্ত্রাঘাতে মারা গেছেন তাহমিদুন্নবী

কেশবপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালতে তিন ব্যবসায়ীকে জরিমানা ২১৫ কেজি ভেজাল ধান বীজ জব্দ

ছেলে-মেয়ে হাত ধরে হাঁটছে, সিগারেট খাচ্ছে, এটি কোন শিক্ষা?

ইউসুফ (আ.)'র মাজারে ইহুদিবাদীদের হানা; পাল্টা আঘাতে ইসরাইলি কমান্ডার আহত

ক্ষমা চাইলেন ‘মন ভালো নেই’ লেখা জবির সেই শিক্ষার্থী

পবিত্র ঈদুল আজহা ১০ জুলাই

কালীগঞ্জে সুপারি গাছ থেকে পড়ে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে সিয়াম!

কারাগার থেকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র এহসান হাবিব সুমন এর খোলা চিঠি

এসএসসি পরীক্ষাঃ বাংলা দ্বিতীয় পত্রে বেশি নম্বর সহজেই...

যেকোন সময় ঘোষণা হতে পারে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটি

যশোরে এবার সরকারি চালসহ ঘাতক দালাল নিমূল কমিটির নেতা আটক

লালমনিরহাটে এক বিধবা মা বাইসাইকেল চালিয়ে ৪২ বছর স্বাস্থ্যসেবা দিচ্ছেন

৫০ বছর ধরে দল করেও সুবিধা বঞ্চিত আ'লীগের প্রচার সম্পাদক নূরুল হক

নোংরা রাজনীতির শিকার যশোরের এমপি স্বপনের ছেলে শুভ

যশোরের রাজগঞ্জে ৫৬ যুবকের উদ্যোগে ভাসমান সেতু র্নিমাণ

কেশবপুরের শাহীনের সেই ভ্যানটি উদ্ধার, আটক তিনজন

অর্থের লোভে মুসলিম থেকে হিন্দু হলো- দিপ্তি রানী দাস

ব্যাচমেট হিসেবে সাইয়েমার পক্ষে ক্ষমা চাইলেন কেশবপুরের এসিল্যান্ড

আমাদের নিউজ পোর্টাল আপনার কেমন লাগে ?

  খুব ভালো

  ভালো

  খুব ভালো না

  ভালো লাগে না

অফিস ঠিকানা  

আর এল পোল্ট্রি, উপজেলা রোড, কেশবপুর বাজার, যশোর।
মোবাইলঃ   ০১৭১৯২৮০৮২৭
ইমেইলঃ   info@kopotakkhonews24.com

প্রকাশক ও সম্পাদক 

মোঃ মাহাবুবুর রহমান (মাহাবুর)

মোবাইলঃ   ০১৭১৯২৮০৮২৭
ইমেইলঃ   info@kopotakkhonews24.com

সোশ্যাল মিডিয়ায় আমরা