আজ বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯           আমাদের কথা    যোগাযোগ

শিরোনাম

  প্রতিনিধি হইতে ইচ্ছুকরা ০১৭৪৭৬০৪৮১৫ নাম্বারে যোগাযোগ করুন।  

নির্দলীয় সরকারের অধীন ছাড়া কোনো তামাশার নির্বাচনে অংশ নেব না: ইসলামি আন্দোলন


নির্দলীয় সরকারের অধীন ছাড়া কোনো তামাশার নির্বাচনে অংশ নেব না: ইসলামি আন্দোলন

প্রকাশিতঃ মঙ্গলবার, মে ১০, ২০২২   পঠিতঃ 15687


আগামি জাতীয় নির্বাচনে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যাবহার করার ব্যাপারে সরকারে দলের পক্ষ থেকে উৎসাহ দেখা গেলেও বিরোধী দল এতে রাজী নয়।

বিএনপিসহ বিরোধী দলগুলো ভোটে ইভিএমের ব্যবহারের বিরোধিতা করছে। বিএনপি ইভিএম পদ্ধতিকে  ‘স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভোট চুরির যন্ত্র’ হিসেবে আখ্যা দিয়ে বলছে, প্রোগ্রামিংয়ের মাধ্যমে এটা করা সম্ভব যে, যেখানেই ভোট দেওয়া হোক, নির্দিষ্ট প্রতীকেই ভোট পড়বে। ভোট কোন প্রতীকে পড়েছে, তার কোনো কাগজের প্রমাণও থাকে না।

সর্বশেষ নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে হেরে যাওয়ার পর বিএনপি নেতা তৈমুর আলম (স্বতন্ত্র প্রার্থী) অভিযোগ করেছিলেন, ইভিএম কারসাজিতে তিনি হেরেছেন।

গত শনিবার আওয়ামী লীগের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে দলের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইঙ্গিত দেন, আগামী জাতীয় নির্বাচনে সব আসনে ভোট হবে ইভিএমে। এ ছাড়া আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের আজ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় অফিসে দলের এক যৌথ সভায় বলেছেন, তাঁদের দল ৩০০ আসনেই ইভিএম চায়।

এ বিষয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আজ প্রশ্ন তুলেছেন, প্রধানমন্ত্রী কীভাবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহারের কথা বলেন? এতেই প্রমাণিত হয়, সরকার ইচ্ছা করেই দেশের নির্বাচনী ব্যবস্থাকে ধ্বংস করেছে।

আজ মঙ্গলবার (১০ মে) দুপুর ১২টায় রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে যৌথ সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

ওদিকে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমির চরমোনাইয়ের পীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করিম আজ এক বিবৃতিতে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন বাংলাদেশে নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের অধীন ছাড়া কোনো তামাশার নির্বাচনে তারা অংশ নেবে  না

ইভিএম ও আওয়ামী লীগের অধীন আগামী জাতীয় নির্বাচন প্রসঙ্গে আজ মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ মনে করে, কোনো দলীয় সরকারের অধীন সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। বিগত কয়েকটি জাতীয় নির্বাচন ও স্থানীয় নির্বাচনে এটা বারবার প্রমাণিত হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে  চরমোনাইয়ের পীর বলেন, ইভিএম আন্তর্জাতিকভাবে প্রত্যাখ্যাত। আর ইভিএমের মাধ্যমে সারা দেশে ভোট অনুষ্ঠিত হবে—এমন কথা প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা দেওয়ার এখতিয়ার রাখেন না। নির্বাচন কোন প্রক্রিয়ায় অনুষ্ঠিত হবে, তা নির্ধারণ করবে নির্বাচন কমিশন। দেশের রাজনৈতিক দলগুলোর মতামতের ভিত্তিতেই নির্বাচন কমিশন তা ঠিক করবে-এটাই জনগণের প্রত্যাশা।

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট গ্রহণ ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) হবে—ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে এমন ইঙ্গিত দেওয়া হলেও এ বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ইসি বলছে, ইভিএম নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে যে সন্দেহ ও অবিশ্বাস আছে, তারা আগে সেটা দূর করতে চায়। তারপর ভোটে ইভিএমের ব্যবহার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

তবে নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আহসান হাবীব খান  গ্ণমধ্যমকে  বলেছেন, ইভিএমে ভোট গ্রহণ প্রক্রিয়া স্বচ্ছ ও ত্রুটিমুক্ত। রাজনৈতিক দলগুলোর আস্থা অর্জনে ইসি সচেষ্ট। ইসি ইভিএম–সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সঙ্গে আলোচনায় বসবে। তা ছাড়া বিভিন্ন রাজনৈতিক দলকে ইভিএম দেখার আমন্ত্রণ জানানো হবে। তিনি বলেন, এখন কমবেশি ১০০ আসনে ভোট গ্রহণের মতো ইভিএম ইসির হাতে আছে। আরও অধিক আসনে ইভিএম ব্যবহরের বিষয়ে কমিশন বৈঠকে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

ইসি সূত্র জানায়, এখনো সিদ্ধান্ত না হলেও ইভিএমের সুবিধা–অসুবিধা নিয়ে নিজেদের মধ্যে কয়েক দফা বৈঠক করেছেন নির্বাচন কমিশনাররা। জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সঙ্গে বৈঠকে ইভিএমের খুঁটিনাটি কারিগরি দিকগুলো পর্যালোচনা করা হবে। এরপর রাজনৈতিক দলগুলোকে বিশেষজ্ঞ নিয়ে আসার আমন্ত্রণ জানানো হবে। তাঁরা নিজেদের মতো করে ইভিএম খতিয়ে দেখার সুযোগ পাবেন। এরপর বড় পরিসরে ইভিএম ব্যবহারের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে ইসি।

অবশ্য ইভিএম নিয়ে বিরোধী দল, বিশেষত বিএনপির সন্দেহ মূলত একটি রাজনৈতিক অবস্থান বলে মনে করছে ইসি। সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়, ইভিএমে কারচুপি সম্ভব নয়, এটি দেখানোর পরও যদি বিএনপি নিজেদের অবস্থানে অনড় থাকে, তাহলে ইসি আর তাদের বক্তব্য আমলে নেবে না। সে ক্ষেত্রে ইভিএমে ভোটের পথেই হাঁটবে ইসি।

নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর আরও বলেছেন, জাতীয় নির্বাচনের এখনো অনেক দেরি আছে। কীভাবে ভোট হবে, তা সাধারণত নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার সময় সিদ্ধান্ত হয়। নতুন ইভিএম কেনার বিষয়েও এখনো কোনো আলোচনা হয়নি। তিনি বলেন, অনেকের অবিশ্বাস আছে, কীভাবে অবিশ্বাসের জায়গা থেকে বিশ্বাসের জায়গায় আনা যায়, তা তাঁরা পরীক্ষা–নিরীক্ষা করে দেখছেন। তিনি বলেন, ইভিএম নিয়ে সন্দেহের জায়গা দূর করতে ইসি ব্যবস্থা নেবে। আস্থার জায়গা ঠিক হয়ে গেলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে কতটি ইভিএম ব্যবহার করা হবে।

ইসি সূত্র জানায়, ২০১৮ সাল থেকে ‘নির্বাচনব্যবস্থায় অধিকতর স্বচ্ছতা আনয়নের লক্ষ্যে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ক্রয়, সংরক্ষণ ও ব্যবহার’ শীর্ষক একটি পাঁচ বছর মেয়াদি প্রকল্পের অধীনে দেড় লাখ ইভিএম সংগ্রহ করেছে ইসি। আগামী বছরের জুনে প্রকল্পটি শেষ হচ্ছে। এই প্রকল্পের মোট ব্যয় ধরা আছে প্রায় চার হাজার কোটি টাকা। প্রতিটি ইভিএমের দাম পড়েছে প্রায় ২ লাখ ৩৫ হাজার টাকা। একই খরচ বিবেচনায় নিলে তিন লাখ নতুন ইভিএম সংগ্রহ করতে ইসিকে ৮ হাজার কোটি টাকার মতো খরচ করতে হবে। অবশ্য নতুন ইভিএম কেনার বিষয়ে এখন পর্যন্ত ইসি কোনো আলোচনা করেনি। যদিও নির্বাচনে ব্যাপকভাবে ইভিএম ব্যবহারের ক্ষেত্রে এখনো বেশ কিছু চ্যালেঞ্জ রয়ে গেছে। এর মধ্যে আছে ভোটারদের, বিশেষত বয়স্ক ভোটারদের প্রযুক্তিভীতি, দক্ষ জনবলের অভাব, কিছু ক্ষেত্রে ইভিএমে ভোটারের আঙুলের ছাপ না মেলা ও যান্ত্রিক ত্রুটি। আবার সংসদ ও স্থানীয় সরকারের বিভিন্ন নির্বাচনে কাগজের ব্যালটের তুলনায় ইভিএমে ভোট পড়ার হারও কম দেখা গেছে।

এ প্রসঙ্গে, নির্বাচন পর্যবেক্ষক সংস্থা ব্রতীর প্রধান নির্বাহী শারমিন মুরশিদ মনে করেন জাতীয় নির্বাচনে ব্যাপকভাবে ইভিএম ব্যবহার করা ঠিক হবে না। কারণ হিসেবে তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত ব্যাপকভাবে ইভিএমের ব্যবহার হয়নি। এই যন্ত্র যথেষ্ট পরীক্ষিত নয়। ছোট ছোট জায়গায় ব্যবহৃত হয়েছে, সেখানে বেশ কিছু ঘাটতি–দুর্বলতা চোখে পড়েছে। কোথাও কোথাও যন্ত্র গন্ডগোল করেছে, ভোট গ্রহণ অনেক ধীর হয়েছে, একজনের আঙুলের ছাপ দেওয়ার পর ভোট দিয়েছেন অন্যজন।

শারমিন মুরশিদ আরও বলেন, ৩০০ আসনে ইভিএমে ভোট পরিচালনার মতো দক্ষতা ইসির আছে বলে মনে হয় না। জনমনে যে আস্থাহীনতা আছে, আগে সেটি দূর করতে হবে। অনেক দেশ ইভিএম থেকে সরে এসেছে। বাংলাদেশের মতো দেশে কাগজের ব্যালটে প্রচলিত পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ করাই সর্বোত্তম।#

 

ইসরাফিল হোসেন / ইসরাফিল হোসেন


মন্তব্য করুন

কালীগঞ্জে সুপারি গাছ থেকে পড়ে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে সিয়াম!

কারাগার থেকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র এহসান হাবিব সুমন এর খোলা চিঠি

এসএসসি পরীক্ষাঃ বাংলা দ্বিতীয় পত্রে বেশি নম্বর সহজেই...

যেকোন সময় ঘোষণা হতে পারে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটি

যশোরে এবার সরকারি চালসহ ঘাতক দালাল নিমূল কমিটির নেতা আটক

লালমনিরহাটে এক বিধবা মা বাইসাইকেল চালিয়ে ৪২ বছর স্বাস্থ্যসেবা দিচ্ছেন

৫০ বছর ধরে দল করেও সুবিধা বঞ্চিত আ'লীগের প্রচার সম্পাদক নূরুল হক

নোংরা রাজনীতির শিকার যশোরের এমপি স্বপনের ছেলে শুভ

যশোরের রাজগঞ্জে ৫৬ যুবকের উদ্যোগে ভাসমান সেতু র্নিমাণ

কেশবপুরের শাহীনের সেই ভ্যানটি উদ্ধার, আটক তিনজন

ব্যাচমেট হিসেবে সাইয়েমার পক্ষে ক্ষমা চাইলেন কেশবপুরের এসিল্যান্ড

নারী সহকারীর সঙ্গে ডিসির অশ্লীল ভিডিও ভাইরাল, সংবাদ না করার অনুরোধ

আমাদের নিউজ পোর্টাল আপনার কেমন লাগে ?

  খুব ভালো

  ভালো

  খুব ভালো না

  ভালো লাগে না

অফিস ঠিকানা  

আর এল পোল্ট্রি, উপজেলা রোড, কেশবপুর বাজার, যশোর।
মোবাইলঃ   ০১৭১৯২৮০৮২৭
ইমেইলঃ   info@kopotakkhonews24.com

প্রকাশক ও সম্পাদক 

মোঃ মাহাবুবুর রহমান (মাহাবুর)

মোবাইলঃ   ০১৭১৯২৮০৮২৭
ইমেইলঃ   info@kopotakkhonews24.com

সোশ্যাল মিডিয়ায় আমরা